6 Ashin 1428 বঙ্গাব্দ মঙ্গলবার ২১ সেপ্টেম্বর ২০২১
Home » ফরিদপুরের সংবাদ » মধুখালী » ফরিদপুরে ‘শিশু শাফিন তার বাবার খুনিদের বিচার চায়’

ফরিদপুরে ‘শিশু শাফিন তার বাবার খুনিদের বিচার চায়’

কামরুজ্জামান সোহেল।
এখনো ঠিকমতো কথাও শিখেনি চার বছর বয়সী শাফিন মাহমুদ সামী। এ বয়সেই সে হারিয়েছে বাবা-মাকে। গত কয়েক মাস আগে ক্যান্সারে মারা গেছেন মা। আর ১১দিন আগে বাবাকে হারিয়েছে। ফলে বাবা-মাকে হারিয়ে সে এখন এতিম। শুধু শাফিনই নয়, তার আরো দুই বোনও এতিম হয়েছে। বাবার হত্যাকারীদের বিচারের দাবীতে গ্রামের হাজারো মানুষের সাথে শিশু শাফিনও মানববন্ধনে অংশ নেন। কিন্তু হাজারো মানুষের সামনে বাবার হত্যাকারীদের গ্রেফতার ও বিচারের দাবীতে প্লাকার্ড হাতে নিয়ে দাঁড়িয়ে ছিল রাস্তায়। সবার সাথে সেও তার বাবার হত্যাকারীদের বিচার দেখতে চায়। শিশু শাফিন মাইক হাতে নিয়ে বলে,‘আমার বাবারে যে মারছে তার বিচার চাই। আমার বাবারে তোমরা আইনা দাও, আমি বাবার কাছে যাবো’। শিশু শাফিনের এমন কথায় উপস্থিত কেউই চোখের পানি ধরে রাখতে পারেনি। কারন কয়েকদিন আগে ক্যান্সারে আক্রান্ত হয়ে মারা যায় তার মা। আর সন্ত্রাসীদের নির্মম হামলায় মারা যায় তার বাবা। শুধু শিশু শাফিনই নয়, বাবার হত্যাকারীদের দ্রুত গ্রেফতার ও বিচার দেখতে চায় সন্ত্রাসী হামলায় নিহত মধুখালীর ব্যবসায়ী জাহাঙ্গীর হোসেনের দুই কন্যা ভিকারুন্নেছা নুন স্কুলের ছাত্রী মাহমুদা জাহান জ্যোতি ও জান্নাতুল জাহান প্রীতি।

ফরিদপুরের মধুখালীর মোটর পার্টস ব্যবসায়ী জাহাঙ্গীর হোসেনকে গত ৫ জুন প্রকাশ্য দিবালোকে হাতুরী, লোহার রড ও হকিস্টিক দিয়ে নির্মমভাবে পিটিয়ে আহত করা হয়। পরে হাসপাতালে সে মারা যায়। এ ঘটনায় ১৬ জনকে আসামী করে থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করা হয়। কিন্তু ঘটনার ১২ দিন পেরিয়ে গেলেও আসামীদের কাউকেও আটক করতে পারেনি পুলিশ। হত্যাকারীদের গ্রেফতার ও বিচারের দাবীতে বৃহস্পতিবার বেলা ১১টার দিকে মধুখালীর কামালদিয়া ইউনিয়নের মাকড়াইল বাজার এলাকায় মানববন্ধন ও বিক্ষোভ মিছিল করে স্থানীয়রা। কামালদিয়া ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সহ সভাপতি মোঃ ইউনুস মিয়ার সভাপতিত্বে বক্তব্য রাখেন ইউপি চেয়ারম্যান হাবিবুল বাশার, নিহতের পিতা হারুন অর রশিদ, নিহতের বড় মেয়ে মাহমুদা জাহান জ্যোতি, স্থানীয় বাসিন্দা জিয়াউল ইসলাম, হানিফ শেখ, ওয়ার্ড মেম্বার মনজুর মন্ডল, ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি আব্দুস সাত্তার মন্ডল প্রমুখ।


নিহতের বাবা হারুন অর রশিদ হিরু মিয়া বলেন, ১১ দিন চলে গেলেও তার সন্তানের হত্যাকারীদের আটক করতে পারেনি পুলিশ। আসামীরা প্রভাবশালী হওয়ায় তারা প্রকাশ্যে ঘুরে বেড়াচ্ছে। মামলা তুলে নিতে তারা হুমকি দিচ্ছে। নিহতের বড় মেয়ে মাহমুদা জাহান জ্যোতি বলেন, আমার বাবা সারা জীবন সততার সাথে জীবন যাপন করেছেন। মাদক, সন্ত্রাস ও ইভটিজিংয়ের বিরুদ্ধে কথা বলায় তাকে নির্মম ভাবে হত্যা করা হয়েছে।
মানববন্ধনে বক্তারা অভিযোগ করে বলেন, জাহাঙ্গীর হত্যাকান্ডের আগেই সন্ত্রাসীদের বিষয়ে পুলিশকে জানানো হয়েছিল। কিন্তু পুলিশ কোন ব্যবস্থা নেয়নি। হত্যাকান্ডের পরও পুলিশ কোন ব্যবস্থা নিচ্ছে না।
মধুখালী থানার ওসি শহিদুল ইসলাম বলেন, মামলাটি বর্তমানে সিআইডিতে হস্তান্তর করা হয়েছে। মামলার তদন্তের দায়িত্ব তাদের হাতে থাকায় আসামীদের গ্রেফতারের বিষয়টি তারাই দেখছে।
সিআইডির ইন্সপেক্টর আকতারুজ্জামান মিনা বলেন, মামলাটি তদন্ত করা হচ্ছে। আমরা দ্রুতই আসামীদের গ্রেফতার করে আইনের আওতায় আনতে পারবো।
গত ৫ জুন দুপুরে মধুখালী হতে নিজ গ্রামের বাড়ী মাকড়াইল যাবার পথে জাহাঙ্গীর হোসেনকে পিটিয়ে মারাত্বক ভাবে আহত করা হয়। পরে হাসাপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যায় জাহাঙ্গীর হোসেন। এ ঘটনায় নিহতের পিতা হারুন অর রশিদ হিরু মিয়া বাদী হয়ে ওয়ালিদ হাসান মামুনকে প্রধান আসামী করে ১৬ জনের নামে হত্যা মামলা দায়ের করে।

আরও পড়ুন...

মধুখালীতে উপজেলা পর্যায়ে প্রশিক্ষণ অনুষ্ঠিত

মতিয়ার রহমান মিঞা,মধুখালী # ফরিদপুরের মধুখালী উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসের আয়োজনে শিক্ষার্থী তথ্য ছক পূরন …

মধুখালীতে পূর্ব শক্রুতার জেরে বাড়ী ভাংচুর-লুটপাট

বিশেষ প্রতিবেদক। ফরিদপুরের মধুখালী উপজেলার জাহাপুর ইউনিয়নের মুরারদিয়া গ্রামে পূর্ব শক্রুতার জের ধরে রবিবার বিকেলে …