ভাঙ্গা

ভাঙ্গায় সড়ক দূর্ঘটনায় শাশুড়ী পুত্রবধূ সহ নিহত-২

সাইফুল্লাহ শামীম, ভাঙ্গা।  ফরিদপুরের ভাঙ্গা উপজেলায় ঢাকা-ভাঙ্গা-খুলনা মহাসড়কের মুনসুরাবাদ নামক স্থানে সড়ক দূর্ঘটনায় শাশুড়ী পত্রবধূ সহ দুইজন নিহত হয়েছে। এ ঘটনায় একই পরিবারের আহত হয়েছে ৮ জন। আহতের তালিকায় মাহেন্দ্র চালকও রয়েছে। শুক্রবার সন্ধ্যায় নিহত ও আহতেরা আটরশি বিশ^ জাকের মঞ্জিল থেকে বাড়ী ফেরার পথে এ দুর্ঘটনার শিকার হন। যাত্রী বোঝাই মাহেন্দ্রকে অজ্ঞাত একটি বাস পিছন থেকে চাঁপা দিলে এ মর্মান্তিক দূর্ঘটনাটি ঘটে। এ সময় ঘটনাস্থলে শাশুড়ী রাজিয়া বেগম (৬০) নিহত হয়েছে। হাসপাতালে নেবার পথে মারা যায় পুত্রবধূ মিনা বেগম (৪৫)। আহত ও নিহতদের সকলের বাড়ী গোপালগঞ্জ জেলার কাশিয়ানি উপজেলার রাজপাট ইউনিয়নের বরইতলা গ্রামে। আহতদের প্রথমে ভাঙ্গা হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। অবস্থার অবনতি হলে সকলকে ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়। আহতরা হলেন, মিতু (২৫) শফিউল (৩০), ফাহিম (৮) হৃদয় (১৫) রোমা (২৫), রাকিব (১৮), মোহাম্মাদ আলী (৫) ও মাহেন্দ্র ড্রাইভার কামরুল (৪৭)।
নিহত রাজিয়া বেগমের নাতী রাকিব বলেন, বেড়ানোর জন্য দাদু ও চাচী সহ চাচাতো বোন তার জামাই আমরা পরিবারের সবাই একটি মাহেন্দ্র নিয়ে সকালে আটরশির জাকের মঞ্জিলে এসেছিলাম। বিকালে বাড়ি ফেরার পথে বিশ্বরোড দিয়ে চলার সময় পিছন থেকে একটি বাস এসে আমাদের চাঁপা দিয়ে চলে যায়। এতে আমার দাদী ও চাচী নিহত হয়। আমরা সকলে অসুস্থ্য অবস্থায় হাসপাতালে আছি।
হাইওয়ে থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা জুয়েল রানা বলেন, ড্রাইভার সহ একটি পরিবারের ১০ থেকে ১১ জন একটি মাহেন্দ্র যোগে কাশিয়ানিতে ফিরছিল। মুনসুরাবাদ সেতুর পার হয়ে ঐ পাড়ে গেলে পিছন থেকে অজ্ঞাত একটি বাস তাদের চাঁপা দিয়ে পালিয়ে যায়। এ সময় ঘটনাস্থলে এক জন ও হাসপাতালে আরেক জন মারা যায়। রাজিয়া বেগমের লাশ আমরা পরিবারের নিকট হস্তান্তর করেছি। এ বিষয়ে একটি মামলা প্রক্রিয়াধীন রয়েছে। এ বিষয়ে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহন করা হচ্ছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *