ফরিদপুর সদর

করোনার টিকার জন্য পুলিশের ভিন্ন রকম সহযোগীতা


কামরুজ্জামান সোহেল।
করোনার টিকাদানের প্রথম ডোজ কার্যক্রমের অংশ হিসাবে শনিবার সারাদেশের ন্যায় ফরিদপুর জেলার বিভিন্ন স্থানে টিকা কার্যক্রম হাতে নেওয়া হয়। সকাল থেকে বিভিন্ন কেন্দ্র টিকা নিতে আসা মানুষের উপস্থিতি ছিল চোখে পড়ার মতো। তবে, টিকা না নেওয়া ব্যক্তিদের বিভিন্ন স্থান থেকে গাড়ীতে তুলে নিয়ে যায় জেলা পুলিশের কয়েকটি টিম। ফরিদপুর জেলা পুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) সুমন রঞ্জন সরকার বলেন, সরকারের ঘোষনা অনুযায়ী ১ম ডোজের টিকাদান কার্যক্রম বাস্তবায়ন করতে মাঠে নেমেছে পুলিশ। এরই অংশ হিসাবে ফরিদপুর শহরের ব্যবস্ততম এলাকা সমূহ, মার্কেট, বিপণী বিতানসহ বিভিন্ন স্থানে গিয়ে টিকা নেওয়ার জন্য প্রচারনা চালানো হয়। এসময় সাধারন জনগনকে প্রশ্ন করা হচ্ছে তারা টিকা নিয়েছেন কিনা ? টিকা কার্ড দেখাতে কেউ ব্যর্থ হলে কিংবা টিকা না নিলে সেই ব্যক্তিকে পুলিশের গাড়ীতে তুলে নিয়ে যাওয়া হচ্ছে। পরে তাদের ফরিদপুর জেনারেল হাসপাতালের টিকাদান কেন্দ্রে নিয়ে টিকা দেওয়া হচ্ছে। সুমন রঞ্জন সরকার আরো বলেন, করোনার ১ম ডোজ টিকা থেকে যাতে কেউ বাদ না পড়ে সেজন্য তাদের এ কার্যক্রম।
শহরের আলিমুজ্জামান ব্রীজের উপর বসে সবজি বিক্রি করা পশ্চিম আলীপুর এলাকার শেখ সোবহান জানান, তিনি ব্যাথার ভয়ে করোনার টিকা নেননি। পুলিশ তাকে জিজ্ঞেস করলে তিনি টিকা না নেবার কথা বলেন। পরে পুলিশের গাড়ীতে করে বেশ কয়েক জনের সাথে তাকেও হাসপাতালের টিকাদান কেন্দ্রে নিয়ে যাওয়া হয়। এরপর তিনি টিকা নিয়ে ফিরেছেন। আলীপুর মোড়ের ফুটপাতে বসা জামা কাপড় বিক্রেতা সেলিম মিয়া বলেন, তাকে পুলিশ এসে জিজ্ঞেস করে টিকা নিয়েছি কিনা। আমি না বললে তারা আমাকে গাড়ীতে উঠিয়ে হাসপাতালে নিয়ে যায়। পরে সেখান থেকে টিকা নিয়ে এসেছি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *