রাজনীতি

একদিকে হেভিওয়েট শাহ জাফর, অন্যদিকে নবাগত বুলবুল

বিশেষ প্রতিবেদক #
ফরিদপুর-১ (বোয়ালমারী-মধুখালী-আলফাডাঙ্গা) আসনে ভোটের মাঠ ক্রমেই সরগরম হয়ে উঠছে। আওয়ামী লীগ ও বিএনপির দুই প্রার্থীর পক্ষে দলের নেতা-কর্মীরা মাঠ চষে বেড়াচ্ছেন। এবারের ভোটযুদ্ধে বিএনপির প্রার্থী শক্তিশালী হলেও আওয়ামী লীগ ভরসা রেখেছে নবাগত প্রার্থীর উপর। ফরিদপুর-১ আসনে সবসময়ই ভোটের মাঠে প্রার্থীদের ছড়াছড়ি থাকে। এবারও এর ব্যতিক্রম হয়নি। তবে, বিএনপির চাইতে আওয়ামী লীগের প্রার্থীর সংখ্যা সব সময় বেশী দেখা গেছে। ফরিদপুর-১ আসনটি আওয়ামী লীগের ঘাঁটি হিসাবে পরিচিত। এ আসনে আওয়ামী লীগের বর্তমান এমপি, হেভিওয়েট প্রার্থী আব্দুর রহমান মনোনয়ন পাননি। আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পাবার তালিকায় বেশ কয়েকজন জাদরেল প্রার্থী সরব ছিলেন। কিন্তু শেষ পর্যন্ত মনোনয়ন পাবার লড়াইয়ে ‘বাজিমাত’ করেছেন রাজনীতিতে একেবারেই নবাগত, রুপালী ব্যাংকের চেয়ারম্যান মনজুর হোসেন বুলবুল। এ আসনে বিএনপি আস্থা রেখেছে তিনবারের সাবেক এমপি, বীরমুক্তিযোদ্ধা শাহ মোহাম্মদ আবু জাফরের উপরই। এ আসনের তিনটি উপজেলায় দলমত নির্বিশেষে শাহ জাফরের অসংখ্য ভক্ত রয়েছে। মহান মুক্তিযুদ্ধের সময় বৃহত্তর ফরিদপুর অঞ্চলের মুজিব বাহিনীর প্রধান ছিলেন তিনি। এমপি থাকাকালীন সময়ে এলাকার উন্নয়নে ব্যাপক ভুমিকা রাখেন। এলাকায় নিজ নামে তিনি একাধিক শিক্ষা প্রতিষ্ঠান গড়ে তুলেছেন। পাশাপাশি বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান গড়ে তুলতে সাহায্য সহযোগীতা করেছেন। ফলে শাহ জাফর তার ব্যক্তি ইমেজের কারনে বেশ এগিয়ে রয়েছেন। এ আসনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী হয়েছেন মনজুর হোসেন বুলবুল। জাদরেল একাধিক প্রার্থীকে হটিয়ে মনোনয়ন বাগিয়ে নেয়ায় স্থানীয় অনেকেই বিষয়টি ভালো ভাবে নেননি। আওয়ামী লীগের অনেকেই বলেছেন, এলাকায় থেকে যারা রাজনীতি করতেন তাদের মধ্য থেকে প্রার্থী দেয়া হলে ভালো হতো। মনজুর হোসেন দলের মনোনয়ন প্রত্যাশী কয়েক নেতাকে মাঠে নামাতে পারলেও অনেক কর্মীকে নিস্ক্রিয় থাকতে দেখা যাচ্ছে। ফলে ভোটের মাঠে প্রভাব পড়তে পারে। স্থানীয় রাজনৈতিক সচেতন মহল মনে করেন, আওয়ামী লীগের মনোনয়ন বঞ্চিত নেতারা কি ভুমিকা রাখেন তার উপরই নির্ভর করছে মনজুর হোসেন বুলবুলের ভাগ্য। বিএনপির জাদরেল প্রার্থীর বিপক্ষে ভোটের মাঠে নবাগত মনজুর হোসেন বুলবুল কেমন লড়াই করে তা দেখতে সবার চোখ এখন এ আসনটির দিকে। এ আসনের অনেক ভোটারের সাথে কথা বলে জানা গেছে, আওয়ামী লীগ ও বিএনপির প্রার্থীর মধ্যে এবার হাড্ডাহাড্ডি লড়াই হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *