8 Ashin 1427 বঙ্গাব্দ বৃহস্পতিবার ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২০
Home » ফরিদপুরের সংবাদ » ফরিদপুর সদর » সাবেক মন্ত্রী কামাল ইউসুফের মেয়েসহ ৪৯ জনের বিরুদ্ধে দায়ের করা মামলা খারিজ

সাবেক মন্ত্রী কামাল ইউসুফের মেয়েসহ ৪৯ জনের বিরুদ্ধে দায়ের করা মামলা খারিজ

বিশেষ প্রতিবেদক।
একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের আগে ফরিদপুর সদরের আওয়ামী লীগের একটি নির্বাচনী ক্যাম্প পুড়িয়ে দেওয়ার অভিযোগে অগ্নি সংযোগসহ বিস্ফোরক আইনে দায়ের করা বিএনপির সাবেক এমপি চৌধুরী কামাল ইবনে ইউসুফের মেয়ে নায়েবা ইউসুফসহ জেলা বিএনপি ও সহযোগী সংগঠনের ৪৯ জনের বিরুদ্ধে দায়ের করা মামলাটি খারিজ করে দিয়েছেন আদালত।
ফরিদপুরের জেলা ও দায়রা জজ আদালতের জজ মো. সেলিম মিয়া মঙ্গলবার মামলাটি খারিজ করে দিয়ে এ মামলার সকল আসামিকে অব্যাহতি দেন। এর আগে ওই মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা ‘আসামিদের বিরুদ্ধে আনীত অভিযোগের কোন সত্যতা পাওয়া যায়নি বলে’ আদালতে প্রতিবেদেন প্রদান করেন। আদালত ওই প্রতিবেদনটি গ্রহণ করে সকল আসামিকে এ মামলা হতে অব্যাহতি দেন।
প্রসঙ্গত গত ২০১৮ সালের ১৮ ডিসেম্বর এ মামলাটি দায়ের করেছিলেন ফরিদপুর সদরের পূর্ব বিল মাহমুদপুর এলাকার বাসিন্দা সমরেশ কুমার সিকদার নমে এক আওয়ামী লীগ কর্মী।
এ মামলায় আসামী করা হয় ওই নির্বাচনে ফরিদপুর-৩ (সদর) আসনে প্রতিদ্বন্দ্বীতাকারী বিএনপির প্রার্থী সাবেক সাংসদ ও মন্ত্রী চৌধুরী কামাল ইবনে ইউসুফের মেয়ে নায়েবা ইউসুফকে। কামাল ইউসুফ বিএনপির কেন্দ্রীয় কমিটির ভাইস চেযারম্যান এবং মহিলা বিএনপির যুগ্ম সম্পাদক নায়েবা ইউসুফ। এ ছাড়া আসামি করা হয় জেলা বিএনপির যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক জুলফিকার হোসেন, জেলা বিএনপির সহ-সভাপতি এফ এম কাইউম, জেলা যুবদলের সাবেক সাধারণ সম্পাদক এ কে কিবরিয়া স্বপন, মহানগর যুবদলের সভাপতি বেনজির আহমেদ, জেলা ছাত্রদলের সভাপতি আদনান হোসেনসহ মোট ৪৮ জনকে।
এ মামলায় নায়েবা ইউসুফ জামিন পেলেও বিএনপির ও সহযোগী সংগঠনের বেশ কয়েকজন নেতা ও কর্মী জেল খাটেন।
এর আগে ২০১৮ সালের ১১ ডিসেম্বর ফরিদপুর সদরের নর্থ চ্যানেল ইউনিয়নের গোলডাঙ্গীতে একটি হত্যা মামলার হুকুমের আসামি করা হয় নায়েবা ইউসুফকে। ওই মামলায় নায়েবা ইউসুফসহ বিএনপি ও সহযোগী সংগঠনের নেতা ও কর্মী ও এলাকাবসীসহ মোট ৩৮জনকে আসামি করা হয়। ওই মামলায় নায়েবা ইউসুফ কারারুদ্ধ হয়েছিলেন। পরবর্তিতে ওই মামলায় স্থানীয় সাত ব্যাক্তির বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র দেন তদন্তকারী কর্মকর্তা। অভিযোগপত্রে বিএনপির কোন নেতা ও কর্মীর বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র দেওয়া হয়নি।
আসামি পক্ষের আইনজীবী গোলাম রব্বানী ভূঁইয়া বলেন, গত জাতীয় নির্বাচনের আগে ফরিদপুর সদরের পূর্ব বিল মাহমুদপুর এলাকায় আওয়ামী লীগের একটি নির্বাচনী ক্যাম্প পুড়িয়ে দেওয়ার মামলায় চিফ জুডিশিয়াল আদালতে ফাইনাল প্রতিবেদন দেন তদন্তকারী কর্মকর্তা। তবে ওই মামলার সাথে দন্ডবিধির বিভিন্ন ধারার সাথে বিস্ফোরক আইনের দুটি ধারা যুক্ত হওয়ায় চিফ জুডিশিয়াল আদালত বিষয়টি জেলা ও দায়রা জজ আদালতে পাঠিয়ে দেন।
গত মঙ্গলবার এ বিষয়ে শুনানী অনুষ্ঠিত হলে রাষ্ট্রপক্ষের পিপি দুলাল চন্দ্র সাহা ফাইনাল রিপোর্ট ক্রুতিযুক্ত উল্লেখ করে ওই রিপোর্টের বিরোধীতা করেন। তবে আদালত তাঁর (পিপি) বক্তব্য নাকচ করে দিয়ে মামলা থেকে নায়েবা ইউসুফসহ সকল আসামিকে অব্যাহতি প্রদান করেন।
প্রসঙ্গত, ২০১৮ সালের ডিসেম্বরে অনুষ্ঠিত জাতীয় নির্বাচনে ফরিদপুর-৩ (সদর) আসনে বিএনপি প্রার্থী চৌধুরী কামাল ইউবনে ইউসুফের বিরুদ্ধে আওয়ামী লীগের প্রার্থী ছিলেন সাবেক মন্ত্রী ও সাংসদ খন্দকার মোশাররফ হোসেন।

আরও পড়ুন...

পর্যটন বিষয়ে ফরিদপুর জেলা প্রশাসনের ভার্চুয়াল সভা

আলমগীর জয় # পর্যটন সম্পর্কে জনসচেতনতা বৃদ্ধি, উন্নয়ন পরিকল্পনায় পর্যটনকে সম্পৃক্তকরণ এবং বাংলাদেশের পর্যটন মহাপরিকল্পনা …

ফরিদপুর জেলা পরিষদের উপ নির্বাচনে আ.লীগের মনোনয়ন পেলেন ভোলা মাস্টার

সুমন ইসলাম। ফরিদপুর জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান নির্বাচনে জেলা আওয়ামী লীগের উপদেষ্টামণ্ডলীর সদস্য, সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান …