27 Ashar 1427 বঙ্গাব্দ শনিবার ১১ জুলাই ২০২০
Home » ফরিদপুরের সংবাদ » ফরিদপুর সদর » লাশের কাছে আসেনি কেউ, পুলিশ সদস্যরা করলো দাফন

লাশের কাছে আসেনি কেউ, পুলিশ সদস্যরা করলো দাফন

কামরুজ্জামান সোহেল #
করোনায় আক্রান্ত হয়ে মারা যাওয়া ফরিদপুরের আইভি আক্তার (২২) এর লাশ দাফন নিয়ে চলে নানা বিপত্তি। স্বামীর বাড়ী রাজবাড়ীতে লাশটি নিয়ে যাওয়া হলে স্থানীয়রা লাশ দাফনে বাঁধা প্রদান করেন। পরে আইভির বাবার বাড়ীতে লাশ আনা হলে সেখানেও ঘটে এই ঘটনা। স্থানীয়রা প্রবল আপত্তি জানায় তাদের এলাকায় লাশ দাফনে। স্থানীয় এলাকাবাসী তো নয়ই, লাশের কাছে আসেনি আইভির স্বজনেরাও। কিন্তু লাশ দাফনে কেউ এগিয়ে না এলেও খবর পেয়ে তাৎক্ষনিক ভাবে এগিয়ে আসে ফরিদপুর কোতয়ালী থানা পুলিশ। থানার ওসি মোর্শেদুল আলমের নেতৃত্বে আইভির লাশটি দাফন করা হয়। জানা গেছে, ফরিদপুর জেলার সদর উপজেলার মাচ্চর ইউনিয়নের দয়ারামপুর গ্রামের আদেল মিয়ার কন্যা আইভি আক্তারের বিয়ে হয় পাশ্ববর্তী রাজবাড়ী জেলায়। গত এপ্রিল মাসে রাজবাড়ীতে স্বামীর বাড়ীতে অবস্থানকালীন সময়ে করোনায় আক্রান্ত হয় আইভি। ২০ এপ্রিল আইভির স্বামী বাবুল শেখ ঢাকার কুর্মিটোলা হাসপাতালে নিয়ে তাকে ভর্তি করান। এরপর আইভি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ছিলেন। গত ৩ মে রবিবার চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যায় আইভি। তাকে দাফনের জন্য স্বামীর বাড়ী রাজবাড়ী জেলায় নিয়ে যাওয়া হলে সেখানকার লোকজন লাশ দাফনে বাঁধা প্রদান করে। স্থানীয়দের প্রবল বাঁধার মুখে পড়ে বাধ্য হয়ে আইভির লাশ তার বাবার বাড়ী ফরিদপুরের দয়রামপুর গ্রামে নিয়ে আসা হয়। কিন্তু এখানেও স্থানীয়দের বাঁধার মুখে পড়ে লাশটি দাফনে। আইভির লাশটি দ্রুত নিয়ে যাওয়ার জন্য স্থানীয়রা চাপ সৃষ্টি করলে বেশ অসুবিধার মধ্যে পড়তে হয় আইভির স্বজনদের। এ সময় কোতয়ালী থানা পুলিশ বিষয়টি জানতে পেরে দ্রুত ঘটনাস্থলে ছুটে যায়। কোতয়ালী থানার ওসি মোর্শেদুল আলম স্থানীয়দের বুঝিয়ে লাশটি দাফনের ব্যবস্থা করতে বলেন। কিন্তু স্থানীয়রা কেউই লাশটি দাফনে এগিয়ে আসেনি। পরে ওসির নেতৃত্বে এক এসআই ও ৪ কনস্টেবল আইভির লাশটি দাফন সম্পর্ন করেন।
কোতয়ালী থানার ওসি মোর্শেদুল আলম জানান, আইভি করোনায় আক্রান্ত হবার পর হাসপাতালে থাকা তার স্বামী ও তার দেবর-ননদেরা নিজ বাড়ীতে ফিরতে পারেনি। রাজবাড়ীর লোকজন তাদের বাড়ীতে উঠতে দেয়নি। বাধ্য হয়ে তারা আইভির বাবার বাড়ীতে চলে আসে। সেখানেই তারা ছিলেন। যদিও আইভির বাবা আদেল মিয়ার বাড়ীটি লকডাউন করা হয়। সেই সময় থেকে তাদের খাদ্য সামগ্রীসহ সব ধরনের সহায়তা করে পুলিশ। আইভি মারা যাবার পর স্বামীর বাড়ী রাজবাড়ীতে লাশটি নিয়ে যাওয়া হলেও সেখানে লাশ দাফনে বাঁধা দেওয়া হয়। পরে ফরিদপুরে লাশটি আনা হলে একই ধরনের সমস্যায় পড়েন। পরে তিনি এবং এসআই আনোয়ারসহ ৪ কনস্টেবল আইভির লাশটি রবিবার রাতে দাফন করেন।

আরও পড়ুন...

ফরিদপুরে একদিনে নতুন করে আরো ৮৯ জনের করোনা সনাক্ত

সোহাগ জামান। ফরিদপুরে নতুন করো আজও ৮৯জনের করোনা সনাক্ত হয়েছে। এদের মধ্যে ফরিদপুর সদর উপজেলায় …

ফরিদপুরের সিএন্ডবি ঘাট নৌ বন্দর অপদখলের চেষ্টার অভিযোগ

বিশেষ প্রতিবেদক। ফরিদপুর নৌ বন্দরের ইজারাদারের বিরুদ্ধে অপপ্রচার চালিয়ে অবৈধ প্রক্রিয়ায় নৌ বন্দরের অপদখলের চেষ্টার …