২৬ অগ্রহায়ন ১৪২৫ বঙ্গাব্দ সোমবার ১০ ডিসেম্বর ২০১৮
Home » ফরিদপুরের সংবাদ » ফরিদপুর সদর » ফরিদপুর-৩ (সদর) আসনে ফের দুই হেভিওয়েট প্রার্থীর লড়াই

ফরিদপুর-৩ (সদর) আসনে ফের দুই হেভিওয়েট প্রার্থীর লড়াই

ষ্টাফ রিপোর্টার #
ফরিদপুর-৩ (সদর) আসনে ফের দুই হেভিওয়েট প্রার্থীর জমজমাট লড়াইয়ের অপেক্ষায় রয়েছে এ আসনের ভোটারেরা। আওয়ামী লীগ থেকে মনোনয়ন পেয়েছেন স্থানীয় সরকার মন্ত্রী আলহাজ্ব ইঞ্জিনিয়ার খন্দকার মোশাররফ হোসেন। অন্যদিকে, বিএনপি তথা জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের মনোনয়ন পেয়েছেন সাবেক মন্ত্রী, বিএনপির কেন্দ্রীয় কমিটির ভাইস প্রেসিডেন্ট চৌধুরী কামাল ইবনে ইউসুফ। হেভিওয়েট এই দুই প্রার্থী ভিন্ন দলের হলেও আত্বীয়তার সূত্রে তারা মামা-ভাগিনা। স্বাধীনতা পরবর্তী ফরিদপুর-৩ আসনটি ছিল বিএনপির দখলে। এ আসন থেকে বিগত দিনে ৫ বার সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন চৌধুরী কামাল ইবনে ইউসুফ। অন্যদিকে, ২০০৮ সালে প্রথমবার কামাল ইউসুফকে হটিয়ে নির্বাচিত হন খন্দকার মোশাররফ হোসেন। পরবর্তীতে ২০১৪ সালের নির্বাচনে তিনি বিনাপ্রতিদ্বন্দ্বিতায় ফের এমপি নির্বাচিত হন। আসন্ন নির্বাচনকে সামনে রেখে আওয়ামী লীগ ও বিএনপির নেতা-কর্মীরা কোমর বেঁধে মাঠে নেমেছেন। আওয়ামী লীগে দলীয় কোন্দল না থাকলেও বিএনপিতে কিছুটা কোন্দল রয়েছে। সেই কোন্দলকে সামাল দিয়ে পুনরায় এ আসনটি দখলে নিতে চেষ্টা চালাচ্ছেন দলটির নেতারা। অন্যদিকে, আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মীরা প্রানপণে চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন তাদের প্রার্থীর হ্যাট্রিক জয় পেতে। ফরিদপুরের চারটি আসনের মধ্যে সবচে গুরুত্বপূর্ন আসন হলো এটি। এ আসনে বিগত দিনে যারাই এমপি নির্বাচিত হয়েছেন তারা সরকারের গুরুত্বপূর্ন মন্ত্রনালয়ের দায়িত্ব পেয়েছেন। নির্বাচনকে সামনে রেখে আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মীরা উন্নয়নের ফিরিস্তি তুলে ভোটারদের দ্বারে দ্বারে যাচ্ছেন। অন্যদিকে, সরকারের নানা অনিয়ম তুলে ধরে এবং বেগম খালেদা জিয়াকে জেল থেকে মুক্তির কথা বলে ভোট চাইছেন বিএনপির নেতা-কর্মীরা। আওয়ামী লীগ ও বিএনপির একাধিক নেতাদের সাথে কথা বলে জানা গেছে, এবারের নির্বাচনটি দলের নেতারা তাদের ‘প্রেট্রিজ ইস্যু’ হিসাবে নিয়েছেন। কোন নেতাই তাদের প্রার্থীকে হারতে দেখতে চায়না। ফলে নির্বাচনকে ঘিরে ভোটারদের নানা ভাবে আকৃষ্ট করছেন তাদের প্রার্থীকে ভোট দিতে। আওয়ামী লীগের নেতারা বলছেন, স্বাধীনতা পরবর্তী সময়ে ফরিদপুরে যে উন্নয়ন হয়েছে তারচে বেশী উন্নয়ন হয়েছে গত ১০ বছরে। ফরিদপুরের উন্নয়নের রুপকার হচ্ছেন খন্দকার মোশাররফ হোসেন। তার কারনেই ফরিদপুর আজ সারাদেশের মধ্যে উন্নয়নের মডেল হিসাবে পরিচিতি পেয়েছে। উন্নয়নের পাশাপাশি মাদক, সন্ত্রাস, চাঁদাবাজী নেই ফরিদপুরে। ফলে ফরিদপুর-৩ আসনের ভোটারেরা মুখিয়ে আছে নৌকা প্রতিকে ভোট দিতে। বিএনপি নেতারা বলছেন, সারাদেশে আওয়ামী লীগের অনিয়ম-দুর্নীতির চিত্র তুলে ধরে তারা ভোটারদের কাছে ভোট চাইছেন। তাছাড়া বেগম খালেদা জিয়াকে জেলে আটকে রাখার বিষয়টিও তারা ভোটারদের সামনে তুলে ধরে ভোট প্রার্থনা করছেন। বিএনপির নেতারা মনে করে নিরপেক্ষ নির্বাচন হলে ফরিদপুর-৩ আসনটি পুনরায় বিএনপি ফিরে পাবে।

আরও পড়ুন...

ফরিদপুরে নারি নির্যাতন প্রতিরোধ পক্ষ পালন

ষ্টাফ রির্পোটার # ফরিদপুরে জেলা প্রশাসন ও মহিলা বিষয়ক অধিদপ্তর উদ্যোগে বেগম রোকেয়া দিবস এবং …

ফরিদপুরের চারটি আসনে ৫ জনের মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার

খায়রুজ্জামান সোহাগ # ফরিদপুর জেলার চারটি সংসদীয় আসনে মোট ৫ প্রার্থী তাদের মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার করে …