৬ ভাদ্র ১৪২৬ বঙ্গাব্দ বৃহস্পতিবার ২২ অগাস্ট ২০১৯
Home » ফরিদপুরের সংবাদ » ফরিদপুরে আমন আবাদে কৃষকের মাথায় হাত

ফরিদপুরে আমন আবাদে কৃষকের মাথায় হাত

কামরুজ্জামান সোহেল #
এ বছর আমন ধানের আবাদ করে দিশেহারা হয়ে পড়েছেন ফরিদপুরের কৃষকেরা। আমন আবাদ করে ধানের ফলন ভালো হয়নি। শুরুতে অতিরিক্ত খরা এবং পরবর্তীতে ঝড়ো হাওয়ার কারনে আমন ফলনে বিপর্যয় নেমে এসেছে। ফলে এ বছর জেলায় আমন ধানের উৎপাদন লক্ষ্যমাত্রা নিয়ে সংশয়ে রয়েছে কৃষি বিভাগ। অধিকাংশ জমিতে ধানে চিটা হওয়ায় ব্যাপক লোকসানের মুখে পড়েছেন কৃষকেরা।
আমন ধান আবাদকারী কৃষকেরা জানায়, ধান রোপনের পর পরই প্রচন্ড তাপমাত্রার কারনে ধান ক্ষেতের ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। ধানের শীষ বের হবার পর অতিরিক্ত এ তাপমাত্রার কারনে তা নষ্ট হয়েছে। ফলে বেশীর ভাগ জমির ধানে চিটা দেখা গেছে। পরবর্তীতে ঝড়ো হাওয়ার কারনে ধান ক্ষেতেরও ক্ষতি হয়েছে ব্যাপক ভাবে। দুটি প্রাকৃতিক দূর্যোগের কারনে আমন ধান আবাদ করে বড় ধরনের লোকসানের মুখে পড়েছে এ জেলার কৃষকেরা। ফলন বিপর্যয়ের কারনে এ বছর ধান বিক্রি করে খরচ উঠানো নিয়েই সংশয় প্রকাশ করেছেন তারা। বোয়ালমারীর সাতৈর এলাকার কৃষক সিরাজ শেখ, রহমত ঢালী জানান, এ বছর বেশ আগ্রহ নিয়েই তারা আমন ধানের আবাদ করেছিলেন। ধানের গোছা দেখে তারা বেশ উচ্ছসিত হয়েছিলেন। কিন্তু কয়েকদিনের অতিরিক্ত তাপমাত্রার কারনে ধানে চিটা দেখা দিয়েছে। তারা জানান, ৪০ বিঘা জমিতে তারা ধানের আবাদ করে এবছর লোকসানের মধ্যে পড়েছেন। এবার তাদের খরচও উঠবেনা বলে জানান তারা। একই কথা জানান, সদর উপজেলার কানাইপুর ইউনিয়নের কৃষক তোফাজ্জেল মৃধা, আইনউদ্দিন শেখ, গফুর বিশ্বাস। তারা জানান, এক বিঘা জমিতে আমন আবাদে তাদের খরচ হয়েছে প্রায় ২০ হাজার টাকা। ধানে চিটা বেশী হওয়ায় তারা বিঘা প্রতি ১০ হাজার টাকাও বিক্রি করতে পারবেন কিনা তা নিয়ে সন্দেহ প্রকাশ করেছেন।
আমন মৌসুমের শুরুতে খরার কারনে ধানের পরাগায়ন ব্যহত হওয়ায় ধানে চিটা বেশী হয়েছে বলে জানিয়েছেন ফরিদপুর সদর উপজেলার উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা মোঃ সিদ্দিকুর রহমান। তিনি বলেন, তাপমাত্রা ৩০ ডিগ্রি সেলসিয়াসের কারনে ধানের ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। পরবর্তীতের ঝড়ে বাতাসের কারনেও ধান ক্ষেতের ক্ষতি হয়। ফলে এবছর লক্ষ্যমাত্রা পূরন হবেনা।
ফরিদপুর জেলায় এ বছর ৬৯ হাজার ৭শত ৯৫ হেক্টর জমিতে আমন ধানের আবাদ হয়েছে। যা গত বছরের তুলনায় ৩ হাজার ৪ শত হেক্টর বেশী পরিমান জমিতে। ধানের আবাদ বেশী হলেও প্রাকৃতিক বিপর্যয়ের কারনে ফলন কম হওয়ায় ক্ষতির মুখে পড়েছেন কৃষকেরা। ক্ষতি পুষিয়ে নিতে পরবর্তী আবাদে সহজশর্তে ঋনসহ সরকারের সহযোগীতা কামনা করেছেন এ জেলার কৃষকেরা।

আরও পড়ুন...

সালথায় দরিদ্র জন সাধারনকে স্বাস্থ্য প্রশিক্ষন

সালথা (ফরিদপুর) প্রতিনিধি # ফরিদপুরের সালথায় দরিদ্র ও গরীব জন সাধারনকে স্বাস্থ্য সচেনতা মূলক প্রশিক্ষণ …

ফরিদপুরে জোড়া খুনের মামলায় ১৩ জনের যাবজ্জীবন সাজা

সোহাগ জামান # ফরিদপুরের সালথা উপজেলার নটখোলা গ্রামে গঞ্জর খাঁ ও মোশা মোল্লা নামের দুই …