জাতীয় মধুখালী

মধুখালীতে কৃষি ঋণ আত্মসাতের মামলায় ৭ জনের কারাদন্ড

বিশেষ প্রতিবেদক #
ফরিদপুরে কৃষি ব্যাংক মধুখালী শাখা থেকে কৃষকের মাঝে বিতরণ করার জন্য কৃষি ঋণ প্রকল্পের টাকা আত্মসাতের মামলায় ৭ জনকে ৬ বছরের করে সশ্রম কারাদন্ড দিয়েছে আদালত। একই সাথে তাদের প্রত্যেককে ৫৫ লাখ ৪৪ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে। জরিমানা অনাদায়ে তাদের আরো ৬ মাসের বিনাশ্রম কারাদন্ড বোগ করতে হবে। ফরিদপুরের বিশেষ জজ আদালতের জজ মো. মতিয়ার রহমান মঙ্গলবার দুপুরে এই রায় প্রদান করেন।
সাজাপ্রাপ্তরা হলেন, মধুখালী উপজেলা শষ্য গুদাম ঋণ প্রকল্পের গুদাম রক্ষক মোতাহার হোসেন মিয়া, প্রকল্পের সাধারণ সম্পাদক শাহ জালাল, মধুখালী শস্য গুদাম ঋণ প্রকল্প মধুখালী গুদাম পরিচালনা কমিটির সদস্য সোহরাব শেখ, মো. হাসেম মল্লিক, মো. মহসিন শরীফ ও সাখাওয়াত মোল্লা।
রায় ঘোষণার সময় সাজাপ্রাপ্তদের মধ্যে ছয়জন আদালতে হাজির ছিলেন। আদেশের পর তাদেরকে জেলা কারাগারে নিয়ে যাওয়া হয়। রায় প্রদানের সময় মধুখালী শস্য গুদাম ঋণ প্রকল্প মধুখালী গুদাম পরিচালনা কমিটির সদস্য ছগির আহমেদ অনুপস্থিত ছিলেন।
মামলা সূত্রে জানা গেছে, মধুখালী কৃষি ব্যাংক শাখা থেকে ২০১৩-১৪ ও ২০১৪-১৫ অর্থবছরে শষ্য গুদাম ঋণ প্রকল্পের আওতায় ৬৬ জন কৃষকের মাঝে ঋণ বিতরণ করা হয়। এ বাবদ শতকরা ৮০ টাকা হারে কৃষকদের ৫৫ লাখ ৪৪ হাজার টাকার শষ্য গুদামে মজুদ রেখে অভিযুক্তরা আত্মসাত করেন। মধুখালী কৃষি ব্যাংকের তৎকালীন শাখা ব্যবস্থাপক ইউনুস আলী মিয়া বাদী হয়ে এ ঘটনায় ৮ জনকে আসামী করে ২০১৪ সালের ২৫ নভেম্বর মধুখালী থানায় একটি মামলা দায়ের করেন।
পরবর্তীতে দুদুকের ফরিদপুর কার্যালয়ের উপ-সহকারী পরিচালক ইকবাল হোসেন মামলাটি তদন্ত করে আসামীদের বিরুদ্ধে ৪০৮/১০৯ ধারায় চার্জশীট দাখিল করেন। মামলার এক নম্বর আসামী প্রকল্পের সভাপতি নুরুল ইসলাম মোল্যা ইতিমধ্যে মৃত্যুবরণ করেছে। এ মামলায় পরবর্তিতে সাতজনকে অভিযুক্ত হরে আদালতে চার্জশীট দেন তদন্তকারী কর্মকর্তা।
দুদুকের আইনজীবী মজিবর রহমান বলেন, অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে অভিযোগ সন্দেহতীতভাবে প্রমাণিত হওয়ায় আদালত প্রত্যেককে কারাদন্ড ও অর্থদন্ড প্রদান করেছেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *