অপরাধ ফরিদপুর সদর ফরিদপুরের সংবাদ

প্রধানমন্ত্রীর চীফ প্রটোকল অফিসার পরিচয় দেয়া প্রতারক আটক

কামরুজ্জামান সোহেল।
ফরিদপুর থেকে প্রধানমন্ত্রীর চীফ প্রটোকল অফিসার পরিচয় দেয়া চন্দ্র শেখর মিত্র (৫৪) এবং প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের নাম ভাঙ্গিয়ে ও বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের এমডি পরিচয় দেয়া লিয়াকত হোসেন (৫১) নামের দুই প্রতারককে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। চন্দ্র শেখরের বাড়ী ঝালকাঠী জেলার নলছিটি থানার কুলকাঠি গ্রামে। তার পিতার নাম চিত্র রঞ্জন মিত্র। আর লিয়াকত হোসেনের বাড়ী বাগেরহাট জেলার মোড়লগঞ্জ থানার পঞ্চকরন ইউনিয়নের কুমারিয়াজোলা গ্রামে। তার পিতার নাম মোঃ মোদাচ্ছের আলী শেখ।
ফরিদপুর শহরের দুইটি স্থানে অভিযান চালিয়ে তাদের গ্রেফতার করা হয়। গ্রেফতারকৃতদের বিরুদ্ধে দেশের বিভিন্ন স্থানে একাধিক মামলা রয়েছে। এ বিষয় নিয়ে বৃহস্পতিবার দুপুরে ফরিদপুর পুলিশ সুপারের কার্যালয়ে এক প্রেসবিফ্রিংয়ের আয়োজন করা হয়। পুলিশ সুপার মোঃ শাহজাহান জানান, সম্প্রতি ফরিদপুর অঞ্চলের বিভিন্ন উপজেলা নির্বাচন অফিসে আউট সোসিং পদ্ধতিতে জনবল নিয়োগের জন্য বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করে। বিজ্ঞপ্তি প্রকাশের পর বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান ও ব্যক্তি জনবল নিয়োগের জন্য দরপত্র জমা দেয়। গত ৭ জানুয়ারি থেকে কয়েকদিনের মধ্যে ফরিদপুর আঞ্চলিক নির্বাচনী অফিসের কর্মকর্তার কাছে প্রধানমন্ত্রীর চীফ প্রটোকল অফিসার পরিচয় দিয়ে জনৈক চন্দ্র শেখর মিত্র ফোন করেন। এ সময় প্রতারক চন্দ্র শেখর মিত্র ট্রাষ্ট সিকিউরিটি সার্ভিসেস কোম্পানীকে কাজ দেবার জন্য নির্দেশ দেন। একই সাথে বিভিন্ন ভাবে হুমকি প্রদান করেন। গত সোমবার উক্ত প্রতারক নিজেই ফরিদপুর আঞ্চলিক নির্বাচন কার্যালয়ে এসে কাজটি ট্রাষ্ট সিকিউরিটি কোম্পানীকে দেবার জন্য চাপ প্রয়োগ করেন। বিষয়টি জেলা আঞ্চলিক নির্বাচন কর্মকর্তার সন্দেহ হলে তিনি থানা পুলিশকে অবহিত করেন। পরে কোতয়ালী থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে প্রতারক চন্দ্র শেখর মিত্রকে গ্রেফতার করে। পুলিশের জিজ্জাসাবাদে চন্দ্র শেখর মিত্র জানায়, সে দীর্ঘদিন যাবত নিজেকে প্রধানমন্ত্রীর চীফ প্রটোকল অফিসার পরিচয় দিয়ে সারাদেশের বিভিন্ন সরকারী দপ্তরে ফোন করে এবং প্রভাব খাটিয়ে কৌশলে অর্থ হাতিয়ে নেন। এরআগে তিনি পদ্মাসেতুর রেললাইনের পাথর সাপ্লাইয়ের কাজটি চীফ প্রটোকল অফিসার পরিচয় দিয়ে একটি গ্রুপকে পাইয়ে দেন। চন্দ্র শেখর মিত্রের বিরুদ্ধে তেজগাঁও থানায় একটি মামলা রয়েছে। এদিকে, প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের নাম ব্যবহার করে টেন্ডার বাণিজ্যসহ বিভিন্ন দপ্তরে চাকুরী দেবার কথা বলে বিপুল পরিমান অর্থ হাতিয়ে নেয়া লিয়াকত হোসেন নামে আরেক জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। লিয়াকত হোসেনের বিরুদ্ধে চট্রগ্রাম মেট্রোপলিটন আদালত ও জয়পুরহাট আদালতে দুইটি গ্রেফতারী পরোয়ানা রয়েছে। গ্রেফতারকৃত এ দুই ব্যক্তির ব্যাংক হিসাবের তথ্য থেকে ধারনা করা হচ্ছে তারা সারাদেশ থেকে অবৈধ কাজের মাধ্যমে কোটি কোটি টাকার সম্পদ গড়ে তুলেছে বলে জানিয়েছে পুলিশ।
গ্রেফতারকৃতদের বিরুদ্ধে কোতয়ালী থানায় পৃথক দুটি মামলা হয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *